দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ডারবান টেস্টের একাদশে ছিলেন না তাইজুল ইসলাম। তাসকিন আহমেদ ও শরিফুল ইসলামের চোটে ডাক পেয়েছিলেন পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টের একাদশে। সেই তাইজুলই বাংলাদেশের পক্ষে একমাত্র উজ্জ্বল। দুই ইনিংস মিলিয়ে ৯ উইকেট নিয়েছেন। যার পুরস্কার পেলেন র‌্যাংকিংয়েও। টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে উন্নতি হয়েছে অভিজ্ঞ স্পিনারের। বিজ্ঞাপন

দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে ওয়ানডে সিরিজ জিতলেও টেস্ট সিরিজটা বাংলাদেশের কেটেছে হতাশার। দুই টেস্টেই বিশাল ব্যবধানে হারতে হয়েছে। এর মধ্যে সেঞ্চুরিয়ান মাহমুদুল হাসান জয় এবং তাইজুল ইসলামই কেবল আলো ছড়াতে পেরেছেন। তাইজুল পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টের প্রথম ইনিংসে ১৩৫ রানে ৬ উইকেট নিয়েছেন। দ্বিতীয় ইনিংসে নেন আরও ৩ উইকেট।

দারুণ এই বোলিংয়ের পুরস্কার হিসেবে টেস্ট বোলিং র‌্যাংকিংয়ে দুই ধাপ উন্নতি হয়েছে বাংলাদেশি স্পিনারের। তাইজুল এখন আছেন ২২ নম্বরে। বিজ্ঞাপন

আইসিসির সপ্তাহিক র‌্যাংকিং হালনাগাদে এক তাইজুল ছাড়া বাংলাদেশের প্রায় সবারই অবনতি হয়েছে। অপর স্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ দুই ধাপ পিছিয়ে ৩৪ নম্বরে নেমে গেছেন।

ব্যাটিংয়ে তিন ধাপ পিছিয়ে ২০ নম্বরে নেমে গেছেন লিটন দাস। মুশফিকুর রহিম পিছিয়েছেন ১ ধাপ, ২৯ নম্বরে আছেন তিনি। তামিম ইকবাল দুই ধাপ পিছিয়ে ৩৫ নম্বরে নেমে গেছেন। টেস্ট অধিনায়ক মুমিনুল হক পিছিয়েছেন ছয় ধাপ। ৫১ নম্বরে নেমে গেছেন তিনি। বিজ্ঞাপন

পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টে বাংলাদেশকে গুড়িয়ে দেওয়ার আসল কাজটা করেছেন দক্ষিণ আফ্রিকার দুই স্পিনার কেশভ মহারাজ ও সাইমন হার্মার। দ্বিতীয় ইনিংসে ৭ উইকেটসহ ম্যাচে একাই ৯ উইকেট নিয়েছেন মহারাজ। যাতে ৭ ধাপ এগিয়ে ২১ নম্বরে উঠে এসেছেন তিনি। দুই ইনিংস মিলিয়ে ৬ উইকেট নেওয়া হার্মার ২৫ ধাপ এগিয়ে ৫৫ নম্বরে উঠে এসেছেন।

টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে ব্যাটিং, বোলিং, অলরাউন্ডার ক্যাটাগরির শীর্ষস্থানে পরিবর্তন হয়নি। ব্যাটারদের মধ্যে সবার ওপরে আছেন মারনাশ লাবুশনে, বোলারদের মধ্যে শীর্ষে প্যাট কামিন্স ও অলরাউন্ডারদের মধ্যে সবার ওপরে রবীন্দ্র জাদেজা। বিজ্ঞাপন