বাজেট না পেলে কোনোদিন সিনেমা করব না : সালাউদ্দিন লাভলু

অনুষ্ঠান শেষ, অতিথিরা সবাই চলে যাচ্ছেন একে একে। সেই অতিথির তালিকায় ওপরের দিকে যাঁর নাম, তিনি বিশিষ্ট নাট্যপরিচালক ও অভিনেতা সালাউদ্দিন লাভলু। তিনিও বের হয়ে যাচ্ছিলেন, এমন সময় তাঁর কাছে সময় চাওয়া হলো। সেই আবদারে সাড়াও দিলেন তিনি। এরপর সেখানে দাঁড়িয়েই শুরু হলো আলাপচারিতা।

এনটিভি অলনাইন : বাংলাদেশের প্রথম মাল্টি-ট্যালেন্ট হান্ট রিয়েলিটি শো ‘ জিপিএইচ ইস্পাত অনন্য প্রতিভা’ আয়োজন করছে এনটিভি। আপনি এই আয়োজনের অন্যতম বিচারক...

সালাউদ্দিন লাভলু : এটি একটি প্রয়োজনীয় উদ্যোগ বলে আমি মনে করি। আমাদের সবকিছু তো রাজধানীকেন্দ্রিক হয়ে গেছে এখন। সারা দেশে অনেক প্রভিভাবান আছে, যারা এই আয়োজনের মাধ্যমে উঠে আসতে পারবে। আমি বিচারক হিসেবে বলব না, এই আয়োজনে সহযোগী হিসেবে থেকে প্রতিভাবানদের সরাসরি দেখতে পারব, এটা ভালোলাগার।

এনটিভি অলনাইন : আলোচিত ‘ সাকিন সারিসুরি’, ‘ আলতা সুন্দরী’, ‘ ঘরকুটুম’, ‘ গরু চোর’, ‘ ঢোলের বাদ্য’, ‘ পত্রমিতালী’, ‘ কবুলিয়তনামা’সহ একাধিক তুমুল জনপ্রিয় নাটকের বেশির ভাগই লেখা বৃন্দাবন দাসের এবং আপনার পরিচালনা করা। চঞ্চল চৌধুরী, মোশাররফ করিম, আ খ ম হাসান, ফজলুর রহমান বাবু, শামীম জামান, শাহনাজ খুশিসহ আপনাদের একটা টিম ছিল। দীর্ঘদিন পর আপানাদের এই টিম আবার একসঙ্গে কাজ করতে যাচ্ছে...

সালাউদ্দিন লাভলু : হ্যাঁ, এটা আমরা অনেক দিন ধরে ভাবছিলাম। এখন হয়েছে কি, আমরা এত বেশি ব্যস্ত হয়ে গেছি যে যার পেশায়... আগে তো কাজগুলো করতাম ভালোবেসে এবং অন্য পরিবেশে আমাদের ওই কাজগুলো হতো। যে কারণে এখনো দর্শক পছন্দ করে। এখন সবার এত ব্যস্ততা, পেশাদারত্ব না কী বলব আমি জানি না... অর্থের পেছনে ছুটছি। ইদানীং অভ্যাস হয়ে গেছে, অভিনেতা হিসেবে আমার ডেটটা নিল, তিন দিনের পয়সা নিলাম। কিন্তু ডেটটা যে নিল, কী স্ক্রিপ্ট, কে সহ-অভিনেতা, কে কী... কোনো কিছুই আমরা দেখছি না। আমাদের ব্যাপারটা এই লেভেলে চলে গেছে। সে ক্ষেত্রে চঞ্চল চৌধুরী, মোশাররফ করিম, বৃন্দাবন দাস, আ খ ম হাসান, শামীম জামান, শাহনাজ

খুশি, ফজলুর রহমান বাবু — আমরা যে টিমটা ছিলাম, এই টিম নিয়ে আবারও কাজ করতে পারব। এবং আবারও ভালো কিছু করতে পারব বলে আমি বিশ্বাস করি। এই টিমের একসঙ্গে কাজ করা নিয়ে দর্শক, সাংবাদিক, দেশ-বিদেশে অনেকের চাপ ছিল। সেই চাওয়ার কারণে আমরা কাজটা শুরু করতে যাচ্ছি। এটা সম্ভবত মার্চ কিংবা এপ্রিল থেকে শুটিং শুরু হবে। নাম এখনো ঠিক হয়নি। ক্যামেরাম্যান থেকে বিখ্যাত নির্মাতা-অভিনেতা সালাউদ্দিন লাভলু। ছবি : মোহাম্মদ ইব্রাহিম

এনটিভি অলনাইন : নির্মাতা সালাউদ্দিন লাভলু তো অভিনয়েও জনপ্রিয়। অভিনয় নিয়ে কী ভাবছেন, এখন আর সেভাবে দেখা যাচ্ছে না...

সালাউদ্দিন লাভলু : শুরুতে তো টুটটাক অভিনয় দিয়ে শুরু করেছিলাম, মঞ্চ নাটক থেকে। তারপর বিটিভিতে অভিনয় করেছি। মূলত পেশা হিসেবে একসময় ক্যামেরাম্যান ছিলাম। এখন তো আমার মূল পেশাই হচ্ছে পরিচালনা। অভিনয়টা করি শখে, যদিও সত্যি কথা বলতে এখন অভিনয় করতে ভয় লাগে। যত বয়স হচ্ছে, ততই কঠিন মনে হচ্ছে... ভয় লাগে এই কারণে, না জেনে-বুঝে অনেক কিছু করে ফেলা যায়। যখন ব্যাপারটা জানা যায়, তখন কিন্তু কাজটা করা কঠিন হয়ে যায়। যত দিন যাচ্ছে, অভিনয় যে একটা কঠিনতম কাজ, এটা তো আগে ভাবিনি। এ জন্য বলছি, অভিনয়ের জন্য যে মনোযোগ দিতে হয়, যে সাধনা করতে হয়, যে সময় দিতে হয়, সেটা তো আমরা করি না। আর অভিনয়ে আমি খুব বেশি

একটা আগ্রহী নই।

এনটিভি অলনাইন : সিনেমা নির্মাণ করতে চেয়েছিলেন, সেটার কী খবর?

সালাউদ্দিন লাভলু : চিত্রনাট্য নিয়ে বসে আছি। সিনেমাটি বানাতে চাই। কিন্তু যে টাকার দরকার, সেই টাকাটা কেউ দিচ্ছে না। আর আমিও সিদ্ধান্ত নিয়ে বসে আছি, আমার এই ছবি করতে যা যা যে বাজেট লাগবে, সেটা না পেলে আমি হয়তো কোনোদিনও সিনেমা নির্মাণ করব না।

আলাপচারিতার মাঝেই ডাক এলো সালাউদ্দিন লাভলুর। যেতে যেতে বলে গেলেন, ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জন্য নির্মাণের আগ্রহ আছে তাঁর। তবে টিভি ধারাবাহিকের জন্য সেই সময় বের করতে পারছেন না। ফুরসত মিললেই দেখা যাবে বিনোদনের এই নতুন অঙ্গনে।

সর্বশেষ সংবাদ